পোড়াগাঁওয়ে নৌকার মাঝি বন্দনা: সর্ব মহলে স্বস্তি

শেরপুর ট্রিবিউন | প্রকাশিত: ২৫ অক্টোবর ২০২১ ২১:৪৫; আপডেট: ৫ ডিসেম্বর ২০২১ ০৫:০১

ছবিঃ শেরপুর ট্রিবিউন

শেরপুরের নালিতাবাড়ী উপজেলার সীমান্তবর্তী পোড়াগাঁও ইউনিয়নে দ্বিতীয় বারের মতো বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেলেন বন্দনা চাম্বুগং। তিনি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

গতকাল (২৪ অক্টোবর) বিকেলে তৃতীয় ধাপের ইউপি নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থীদের নাম প্রকাশ করে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ। তখন দেখা যায় পোড়াগাঁও ইউনিয়নে দ্বিতীয় বারের মতো আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেলেন বন্দনা চাম্বুগং। বিষয়টি কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের উপ-দপ্তর সম্পাদক সায়েম খান তার ফেসবুকে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থীদের নামের তালিকা প্রকাশ করে নিশ্চিত করেন। বন্দনা চাম্বুগং মনোনয়ন পেয়েছে খবরটি দ্রুত গতিতে এলাকায় ছড়িয়ে পড়ে এবং তৎক্ষনাৎ তার কর্মী সমর্থকেরা স্থানীয় বারোমারী বাজারে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে অভিনন্দন জানিয়ে বন্দনার সমর্থনে নৌকা মার্কার মিছিল বের করে।

বন্দনা নৌকা প্রতিক পাওয়াতে সাধারণ মানুষের প্রতিক্রিয়ায় জানা যায়, তারা এবার মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর হাতকে শক্তিশালী করতে সকল বিভেধ ভুলে নৌকা মার্কাকে বিজয়ী করে পোড়াগাঁও ইউনিয়নে দীর্ঘদিনের ত্রাসের রাজত্বের অবসান ঘটাবে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে আন্ধারুপাড়া গ্রামের একাধিক ভোটার জানান, গতবারই আমরা বন্দনাকে নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে বিজয়ী করেছিলাম। কিন্তু উপজেলা পর্যায়ের কিছু অসাধু নেতা বর্তমান চেয়ারম্যানের কালো টাকার কাছে বিক্রি হয়ে কেন্দ্র দখল করে ফলাফল পরিবর্তন করে বন্দনার বিজয় ছিনিয়ে নেয়।

নৌকা মার্কার প্রার্থী বন্দনা বলেন, আমি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে কৃতজ্ঞ। তিনি আমাকে নৌকা প্রতিক দিয়েছেন, আমি এখন উনাকে নৌকার বিজয় উপহার দেবো।

ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক তোতা মিয়া বলেন, এবারের নির্বাচনে আমিও নৌকা মার্কার প্রার্থী হিসেবে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী ছিলাম। যেহেতু দেশরত্ন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আপা বন্দনা চাম্বুগংকে মনোনয়ন দিয়েছে সেহেতু আমরা এই মনোনয়নকে স্বাগত জানাচ্ছি। আমরা সবাই এখন ঐক্যবদ্ধ হয়ে বন্দনাকে নৌকা মার্কায় বিজয়ী করে শেখ হাসিনা আপার হাতকে শক্তিশালী করবো।

শেরপুর ট্রিবিউনের অনুসন্ধানে জানা গেছে, এবার বিএনপি দলীয় ভাবে অংশগ্রহণ না করায় এই ইউনিয়নে বিএনপির কোন প্রার্থী দলীয় বা স্বতন্ত্র কোন ভাবেই অংশগ্রহণ করছেনা। অপর দিকে স্বতন্ত্র হিসেবে শেষ পর্যন্ত ভোটের লড়াইয়ে মাঠে থাকবেন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক মাওলানা জামাল উদ্দিন। অবশ্য জামাল উদ্দিন ইতোমধ্যে ভোটের মাঠে তার একটি শক্ত অবস্থান গড়ে তুলতে সক্ষম হয়েছেন। বর্তমান চেয়ারম্যান আজাদ মিয়া রয়েছেন দুটানায়। শেষ পর্যন্ত তিনি নির্বাচন করবেন কিনা তা এখনো নিশ্চিত নয়। অবশ্য গত নির্বাচনে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে ইতোমধ্যে তিনি মনোনয়ন বোর্ডের বিরাগভাজন হয়েছেন। এবার বিভিন্ন তদ্বির লবিং করেও মনোনয়ন আনতে পারেননি। এছাড়া বর্তমান মেয়াদে চেয়ারম্যান থাকা অবস্থায় বিভিন্ন সময় নানা ইস্যুতে বিতর্কে জড়িয়েছেন। নারী কেলেঙ্কারি, সরকারি সেবা প্রদানে তার অনুসারীদের মাধ্যমে ঘুষ গ্রহণ, অর্থ বাণিজ্য সহ নানান বিষয়েই রয়েছে তার সংশ্লিষ্টতার অভিযোগ। ইউনিয়ন কৃষকলীগের সাধারণ সম্পাদক রহুল আমিন বর্তমান ইউপি মেম্বার। তিনিও চেয়ারম্যান পদে প্রার্থীতা ঘোষণা দিয়েছেন। তবে ভোটের মাঠে সর্বশেষ সমীকরণ দাঁড়াবে লড়াই হবে আওয়ামী লীগের বন্দনার সাথে স্বতন্ত্র জামাল উদ্দিনের।

উল্লেখ্য এবার পোড়াগাঁও ইউনিয়ন থেকে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী ছিলেন মোট নয় জন। তারা হলেন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি বন্দনা চাম্বুগং, সাধারণ সম্পাদক তোতা মিয়া, ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক জামাল উদ্দিন, বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক লুইস নেং মিঞ্জা, সদস্য জাস্টিনা চিরান, কৃষক লীগের সাধারণ সম্পাদক রহুল আমিন, যুবলীগের সভাপতি মুরাদ মিয়া, আওয়ামী লীগ সমর্থক নজরুল ইসলাম ও গতবারের বিদ্রোহী প্রার্থী আজাদ মিয়া।





এই বিভাগের জনপ্রিয় খবর
Top