শেরপুর জেলা পরিষদ নির্বাচনে বিপুল ভোটে জয়ী হলেন আ‍‍.লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী রুমান

শেরপুর ট্রিবিউন | প্রকাশিত: ১৭ অক্টোবর ২০২২ ২৩:৪০; আপডেট: ২ ডিসেম্বর ২০২২ ০৪:৪৫

ছবিঃ সংগৃহীত

শেরপুরে প্রথমবারের মত ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএমে) এর মাধ্যমে জেলা পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। উৎসবমুখর পরিবেশে শান্তিপূর্ণভাবে সকাল নয়টার দিকে ভোটগ্রহণ শুরু হয়ে শেষ হয় দুপুর দুইটায়। নির্বাচনে বিপুল ভোটের ব্যবধানে জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও বিদ্রোহী প্রার্থী হুমায়ুন কবীর রুমান আবারও চেয়ারম্যান পদে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগ মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট চন্দন কুমার পাল।

জেলা রির্টানিং অফিসারের কার্যালয় সূত্রে প্রাপ্ত ফলাফল অনুযায়ী বিজয়ী প্রার্থী হুমায়ুন কবীর রুমান মোটরসাইকেল প্রতীকে ৫৪৯ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থী এডভোকেট চন্দন কুমার পাল আনারস প্রতীকে পেয়েছেন ১৮৭ ভোট। অপর প্রার্থী মো. জাকারিয়া বিষু চশমা প্রতীকে পেয়েছেন ৫ ভোট।

সন্ধ্যায় জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে রিটার্নিং কর্মকর্তা ও শেরপুরের জেলা প্রশাসক সাহেলা আক্তার নির্বাচনের বেসরকারী ফলাফল ঘোষনা করেন। এ সময় বিজয়ী প্রার্থী ও তার হাজারো সমর্থকরা উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, হুমায়ুন কবির রুমান দ্বিতীয়বারের মতো শেরপুর জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে নির্বাচিত হলেন। বিগত নির্বাচনেও তিনি বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে আ‍‍. লীগের মনোনীত প্রার্থী এড. চন্দন কুমার পালকে পরাজিত করে চেয়ারম্যান পদে নির্বাচিত হয়েছিলেন। বীর মুক্তিযোদ্ধার সন্তান হুমায়ুন কবির রুমান সাবেক সফল পৌর মেয়র এবং জেলা পরিষদের প্রশাসক হিসেবেও ইতিপূর্বে সফলতার সাথে দায়িত্ব পালন করেছেন।

১৭অক্টোবর সোমবার জেলার ৫টি কেন্দ্রে কড়া নিরাপত্তা ও সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনার মধ্যদিয়ে বিরতীহীনভাবে ভোট গ্রহন অনুষ্ঠিত হয়। নির্বাচন চলাকালে কোথাও কোন অপ্রীতিকর ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি। উল্লেখ্য, শেরপুর জেলা পরিষদ নির্বাচনে ৫টি উপজেলার ৫২টি ইউনিয়ন ও ৪টি পৌরসভার মোট ৫টি কেন্দ্রে ভোটার সংখ্যা ছিল ৭৪৩ জন।





এই বিভাগের জনপ্রিয় খবর
Top