শেরপুরে যুদ্ধাহত মুক্তিযুদ্ধার বেঁচে থাকার আকুতি

সোহাগী আক্তার | প্রকাশিত: ২১ মার্চ ২০২১ ১৬:৫১; আপডেট: ২১ মার্চ ২০২১ ১৬:৫৮

ছবিঃ সংগৃহীত

বঙ্গবন্ধুর সোনায় বাংলায় আরও কিছুদিন বেঁচে থাকতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সহায়তা কামনা করেছেন শেরপুরের যুদ্ধাহত বীর মুক্তিযোদ্ধা জেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা, প্রবীণ সংগঠক আলহাজ্ব আব্দুল ওয়াদুদ অদু।

২১ মার্চ রবিবার দুপুরে কান্নাজড়িত কণ্ঠে ওই আকুতি জানিয়ে তিনি বলেন, ' জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের ডাকে দেশ মাতৃকাকে রক্ষায় ৭১ এর যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েছিলাম। আজ তারই সুযোগ্য তনয়া শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ মাথা উঁচু করে দাড়িয়েছে। তাই রোগ- শোক ও আর্থিক অনটনে বিপর্যস্ত হয়ে পড়ার পরও বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলায় আরও কিছুদিন বেঁচে থাকতে চাই। এজন্য এ মুহূর্তে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সহায়তা খুবই প্রয়োজন।'

পূর্বে নেওয়া তার চিকিৎসার একটি বিল মুক্তিযোদ্ধা কল্যাণ ট্রাষ্টে দীর্ঘদিন যাবত পড়ে আছে। এজন্য তিনি দফায় দফায় তাগিদ দেওয়ার পরও তা আজও পাশ হয়নি। বলেছেন নুরুল ইসলাম হিরো, সাবেক কমান্ডার, জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ।

যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল ওয়াদুদ অদু একসময় শেরপুর সরকারি কলেজ ছাত্র সংসদের ভিপিসহ ছাত্রলীগ ও যুবলীগের নেতৃত্বে ছিলেন। তিনি দীর্ঘদিনের লিভার, ডায়াবেটিস ও হৃদরোগসহ বার্ধক্যজনিত বিভিন্ন রোগে অসুস্থ হয়ে গত ১৭ মার্চ থেকে টানা ৫ দিন যাবত রাজধানীর ল্যাব এইড হাসপাতালের ৫ম তলার ৫৫৫ নম্বর কেবিনে ভর্তি রয়েছেন।

তার বর্তমান অবস্থার খোঁজ নিতে মোবাইল ফোন করলে হাসপাতালের শস্যা থেকে ওই আকুতি ব্যক্ত করেন তিনি।
পাশে থাকা একমাত্র পুত্র, চেম্বার অব কমার্সের পরিচালক ওয়ালিদ বিন ফেরদৌস লোটাস জানান, তার বাবা ল্যাব এইড হাসপাতালের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের লিভার বিভাগের প্রধান প্রফেসর ডা. মামুন আল মাহতাবের অধীনে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

বর্তমানে তার অবস্থা গুরুতর। সঠিক চিকিৎসা নিতে প্রয়োজন অনেক অর্থের। কিন্তু দীর্ঘদিন ধরে অসুস্থ থাকায় তার চিকিৎসা ব্যয় মেটানো এখন পরিবারের পক্ষে কষ্টসাধ্য হয়ে দাঁড়িয়েছে।

তিনি আরও জানান, তার বাবা মানসিকভাবে খুবই শক্তিশালী মনের অধিকারী হলেও এবার ভেঙে পড়েছেন। শুধু স্বজনদের প্রতি ফ্যাল ফ্যাল দৃষ্টিতে তাকিয়ে থাকেন। আবার কখনও তার দু'চোখ বেয়ে অশ্রু গড়িয়ে পড়ছে।

এ ব্যাপারে জেলা মুক্তিযোদ্ধা ইউনিটের সাবেক কমান্ডার নুরুল ইসলাম হিরো তার আশুরোগ মুক্তি কামনা করে জানান, পূর্বে নেওয়া তার চিকিৎসার একটি বিল মুক্তিযোদ্ধা কল্যাণ ট্রাষ্টে দীর্ঘদিন যাবত পড়ে আছে। এজন্য তিনি দফায় দফায় তাগিদ দেওয়ার পরও তা আজও পাশ হয়নি। তবে তার উপযুক্ত চিকিৎসার্থে প্রধানমন্ত্রী বা মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সহায়তা প্রয়োজন বলে তিনি অভিমত পোষণ করেন।

উল্লেখ্য, বার্ধক্যসহ নানা জটিল রোগে গুরুতর অসুস্থ্য হয়ে পড়লে তাকে গত ১৭ মার্চ সকালে শহরের বাগরাকসা এলাকাস্থিত নিজ বাসা থেকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় নেওয়া হয়।





এই বিভাগের জনপ্রিয় খবর
Top