গারো পাহাড়ের অর্থকরী ফসল।

শেরপুরে মালটা চাষ, কৃষিতে নতুন সম্ভাবনা।

সোহাগী আক্তার ও আশরাফুল ইসলাম | প্রকাশিত: ১৫ অক্টোবর ২০২০ ২৩:৩৮; আপডেট: ১৫ অক্টোবর ২০২০ ২৩:৫৩

শেরপুরের মালটা
শেরপুর জেলার শ্রীবর্দি, ঝিনাইগাতি ও নালিতাবাড়ি উপজেলার পাহাড়ী অঞ্চলের পতিত জমিতে ইদানীং শুরু হয়েছে লেবু, কমলা ও মালটা বাণিজ্যিক চাষাবাদ। পাহাড়ের ঢাল ও সমতল ভূমিতে মোট প্রায় ২৪ হেক্টর জমিতে চাষ হচ্ছে সাইট্রাস জাতীয় এসব ফলের। ভারতের মেঘালয় রাজ্যের কোলঘেঁষা শেরপুরের এ অঞ্চলগুলো কমলা বা মালটা চাষের জন্য এতটা উপযোগী তা আগে জানতেন না গারো পাহাড়ের অধিবাসীরা। কৃষি কর্মকর্তারা বলছেন, উর্বর লাল মাটি ও শুষ্ক আবহাওয়ার ফলে সুস্বাদু ও লাভজনক এই মাল্টা চাষে এ তিন উপজেলায় রয়েছে প্রচুর সম্ভাবনা।
 
সর্বপ্রথম, প্রায় বছর তিনেক আগে শেরপুর জেলার ঝিনাইগাতি উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের সাইট্রাস ডেভেলপমেন্ট প্রকল্পের আওতায় লেবু ও মালটা চাষে সফলতা পেয়েছিলেন উদ্যোক্তা আব্দুল বাতেনসহ আরও অনেকেই।
পরিকল্পনা, বিনিয়োগ ও সরকারি পৃষ্ঠপোষকতা পেলে বিপুল সম্ভবনার এই খাতটি শেরপুর জেলার অর্থনৈতিক উন্নয়ন ও কর্মসংস্থানের বিপুল সুযোগ সৃষ্টি হবে বলে ধারণা স্থানীয়দের। ফলে একদিকে আয় বৃদ্ধি পাবে অন্যদিকে বেকারত্ব অনেকাংশে হ্রাস পাবে।
 
তবে এলাকাবাসী শুরুতে মালটা চাষের প্রতি অনীহা ও অনাগ্রহ প্রকাশ করলে বেশ বেগ পোহাতে হয়েছে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের। পরবর্তীতে ফলন বেশি ও লাভজনক হওয়ায়  অনেকেই ঝুঁকে পড়েছেন এই মালটা চাষের উপর ৷ একদিকে গারো পাহাড়ের নিজস্ব সৌন্দর্য অপরদিকে মাল্টা বাগানের কথা শুনে প্রতিদিনই জেলার বিভিন্ন প্রান্ত থেকে দর্শনার্থী ও ভ্রমণ পিপাসুরা ভীড় করছেন মাল্টা বাগান দেখতে।
 
 
 
এখানকার সবুজ মালটাগুলোর স্বাদ এবং মান বিদেশী মাল্টাগুলোর চাইতে যথেষ্ট ভালো এবং মিষ্টি। এ জাতের মালটাগুলো নভেম্বর এর শেষের সপ্তাহ পর্যন্ত পাওয়া যায়। পর্যটকেরা বেড়াতে আসলে এসব বাগান থেকেই ফরমালিন মুক্ত ফ্রেশ মালটা নিজ হাতে তুলে ওজন করে কিনে নিয়ে যায়। বাজারের অন্যান্য আমদানীকৃত মালটার চেয়ে এ মালটার দামও তুলনামূলক কম। লেবু ,কমলা ও মালটা ছাড়াও শেরপুরের পাহাড়ের ঢালে জনপ্রিয়য়তা পাচ্ছে চা চাষ। এসব দৃষ্টিনন্দন ফলের বাগান অন্যদিকে পাহাড়ের সৌন্দর্য্য; সব কিছু মিলে শেরপুরের পর্যটন সম্ভাবনা অনেক গুণে বেড়ে যাবে বলে সকলের ধারণা। 
 
 
 


বিষয়:



এই বিভাগের জনপ্রিয় খবর
Top