প্রতিষ্ঠানটির বিরুদ্ধে ভেজাল কীটনাশক বিক্রির অভিযোগ দীর্ঘদিনের

ভেজাল কীটনাশক ব্যবসায়ীকে শোকজ করায় কৃষি কর্মকর্তাকে স্ট্যান্ড রিলিজ; প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন

মো: হারুন অর রশিদ | প্রকাশিত: ১০ এপ্রিল ২০২৩ ০১:০৮; আপডেট: ২৫ মে ২০২৪ ০৮:০৮

ছবি: শেরপুর ট্রিবিউন

সরকারের অনুমোদনবিহীন, মেয়াদোত্তীর্ণ ও মানহীন-ভেজাল কীটনাশক বিক্রির দায়ে এক কীটনাশক ব্যবসায়ীকে শোকজের জেরে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তার স্ট্যান্ড রিলিজ স্থগিত চেয়ে সংবাদ সম্মেলন করেছেন ব্যবসায়ীরা। রোববার (৯ এপ্রিল) দুপুরে শেরপুরের নালিতাবাড়ী শহরের মধ্যবাজারস্থ কার্যালয়ে বাংলাদেশ ফার্টিলাইজার এসোসিয়েশন এবং বাংলাদেশ বিএডিসি বীজ ও সার এসোসিয়েশনের নালিতাবাড়ী ইউনিট যৌথভাবে এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে।

সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশ ফার্টিলাইজার এসোসিয়েশন নালিতাবাড়ী ইউনিটের সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান, পরিচালক নূর মোহাম্মদ, বাংলাদেশ বিএডিসি বীজ ও সার এসোসিয়েশন এর সভাপতি আল আমিন, সাধারণ সম্পাদক আমিন আল মামুনসহ সার, বীজ ও কীটনাশক ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন বাংলাদেশ ফার্টিলাইজার এসোসিয়েশন নালিতাবাড়ী ইউনিট এর সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান।

এসময় তিনি বলেন, মেসার্স সাহা ট্রেডার্স সরকারের নিয়ম-নীতি না মেনে দীর্ঘদিন যাবৎ নিম্নমানের এবং অনুমোদনহীন এমনকি মেয়াদোত্তীর্ণ কৃষি উপকরণ বীজ, কীটনাশক ইত্যাদি বিক্রি করে থাকে। অপেক্ষাকৃত কম মূল্যে পেয়ে তা কিনে কৃষকরা প্রতারিত হন। নালিতাবাড়ী খাদ্য উদ্বৃত্ত উপজেলা হিসেবে আমরা এটা মেনে নিতে পারি না। আমরা কৃষকের স্বার্থে ভালো মানের কৃষি উপকরণ বিক্রির পক্ষে। সাহা ট্রেডার্স যা করছে তা অন্যায়। তাদের এ অন্যায়ের কারণে শোকজ করায় উল্টো কৃষি কর্মকর্তা আলমগীর কবীরকে স্ট্যান্ড রিলিজ করা হয়েছে। আমরা এ স্ট্যান্ড রিলিজ স্থগিত চেয়ে ইতিমধ্যেই কৃষি মন্ত্রণালয়ের সচিব বরাবর আবেদন করেছি।

এসময় নালিতাবাড়ী প্রেসক্লাবের উর্ধ্বতন পরিষদ সদস্য সামেদুল ইসলাম তালুকদার, সভাপতি মান্নান সোহেল, সাধারণ সম্পাদক মনিরুল ইসলাম, সহ সভাপতি বিপ্লব দে কেটু, মাহফুজুর রহমান সোহাগ, সহ-সাধারণ সম্পাদক আবদুল মোমেন, সাংগঠনিক সম্পাদক জাফর আহমেদ, অর্থ সম্পাদক আল হেলাল, কল্যাণ তহবিল সম্পাদক এম. সুরুজ্জামান, দফতর ও প্রচার সম্পাদক মো: হারুন অর রশিদ সহ নালিতাবাড়ীতে কর্মরত সাংবাদিকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

নালিতাবাড়ীতে যোগদানের পর থেকে কৃষি কর্মকর্তা আলমগীর কবীর একজন কৃষিবান্ধব অফিসার হিসেবে সুখ্যাতি অর্জন করেন। একদম প্রান্তিক পর্যায়ের কৃষকেরা সরাসরি কৃষি অফিসের মাধ্যমে সরকারি কৃষি সেবা পেতো। গত মৌসুমে সারা দেশে অসাধু ব্যবসায়ীদের সিন্ডিকেটে কৃত্রিম সার সংকট তৈরী হলেও আলমগীর কবীরের দক্ষতায় ও নিয়মিত বাজার মনিটরিংয়ে নালিতাবাড়ীতে সার সংকট হয়নি।

উল্লেখ্য, দফায় দফায় সতর্ক করার পরও অনুমোদনহীন কীটনাশক (মাইক্রোভিট ৮০ ডব্লিউ পি.) বিক্রির অপরাধে ভেজালবিরোধী অভিযানে মেসার্স সাহা ট্রেডার্সকে গত ৩০ মার্চ শোকজ করেন উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আলমগীর কবীর। পরে বিষয়টি সমাধানে অনৈতিক প্রস্তাবসহ নানা কৌশলে ব্যর্থ হলে পরিবেশক এর পক্ষে রাজিব এগ্রো ক্যামিকেলস এর সিইও আবদুস সালাম উপজেলা কৃষি কর্মকর্তাকে মোবাইল ফোনে গত ৩ এপ্রিল বদলির হুমকী দেন বলে অভিযোগ রয়েছে। ৪ এপ্রিল উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আলমগীর কবীরের রাঙামাটি জেলার বরকল উপজেলায় তাৎক্ষণিক বদলির আদেশ হয়। এ নিয়ে স্থানীয় কৃষক থেকে সব মহলে ব্যাপক সমালোচনার ঝড় ওঠে।





এই বিভাগের জনপ্রিয় খবর
Top