ইউপি নির্বাচন: পোড়াগাঁও এ জনপ্রিয়তার শীর্ষে চেয়ারম্যান প্রার্থী জামাল উদ্দিন

শেরপুর ট্রিবিউন | প্রকাশিত: ২৬ অক্টোবর ২০২১ ২৩:৫৮; আপডেট: ৫ ডিসেম্বর ২০২১ ০৪:৩৮

ছবি: শেরপুর ট্রিবিউন

আগামী ২৮ নভেম্বর তৃতীয় ধাপের ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এই ধাপে শেরপুরের নালিতাবাড়ী উপজেলার ১২ টি ইউনিয়নেই ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। তাই ইতোমধ্যে প্রত্যেক ইউনিয়নেই প্রার্থীরা ব্যস্ত সময় পার করছে। তেমনি ব্যতিক্রম নয় উপজেলার সীমান্তবর্তী ১নং পোড়াগাঁও ইউনিয়ন।

এই ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়েছেন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি বন্দনা চাম্বুগং। তার প্রতিপক্ষ হিসেবে লড়ছেন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক মাওলানা জামাল উদ্দিন ও বর্তমান চেয়ারম্যান আজাদ মিয়া। এছাড়াও এখন পর্যন্ত চেয়ারম্যান পদে মাঠে রয়েছেন বর্তমান ইউপি সদস্য ও ইউনিয়ন কৃষক লীগের সাধারণ সম্পাদক রহুল আমিন।

শেরপুর ট্রিবিউনের অনুসন্ধানে জানা যায়, পোড়াগাঁও ইউনিয়নে এবার ভোটের লড়াইটা হবে সেয়ানে সেয়ানে। একদিকে নৌকা মার্কার প্রার্থী বন্দনা, অপর দিকে স্বতন্ত্র জামাল উদ্দিন। ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সহ আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের নিয়ে মাঠে নিজের অবস্থান শক্ত করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন বন্দনা চাম্বুগং। অপর দিকে মাওলানা জামাল উদ্দিন ইতোমধ্যে ভোটারদের মাঝে একচেটিয়া জনপ্রিয়তা অর্জন করতে সমর্থ হয়েছেন। নিজের শিক্ষাগত যোগ্যতা ও পারিবারিক ইতিহাসে তিনি সবার চাইতে এগিয়ে। এছাড়াও বিভিন্ন ধর্মীয় ও সামাজিক সংগঠনের সাথে সম্পৃক্ততা, নিজের পিতার নামে কল্যাণ ট্রাস্ট করে যেকোন দুর্যোগকালীন সময়ে সাধারণ ও অসহায় মানুষদের অনুদান দিয়ে পাশে দাঁড়ানো, বিভিন্ন উৎসবে খাদ্য-বস্ত্র-অর্থ বিতরণ করে তিনি নিজেকে অনন্য উচ্চতায় প্রতিষ্ঠিত করতে সক্ষম হয়েছেন। প্রতিদিন ইউনিয়নের বিভিন্ন জায়গাম পথসভা, চা-স্টল সভা করে নিজস্ব শক্তিশালী বলয় গড়ে তুলেছেন।

পোড়াগাঁও ইউনিয়নের কোচপাড়া, আন্ধারুপাড়া, বাতকুচি, বুরুঙ্গা, সমশ্চূড়া এলাকার ভোটারদের সাথে আলাপ করে জানা যায়, তাদের বেশীর ভাগ ভোটারই এবার জামাল উদ্দিনের সমর্থক হিসেবে ভোটের মাঠে কাজ করছেন। বর্তমান ইউপি চেয়ারম্যানের ত্রাসের রাজত্ব থেকে রেহাই পেতে তাদের কাছে জামাল উদ্দিনের বিকল্প নেই। তারা এবার জামাল উদ্দিনকে বিজয়ী করে শান্তিপূর্ণ পোড়াগাঁও ইউনিয়ন গড়তে আশাবাদী বলে জানান।

এদিকে অপর প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান মনোনয়ন বঞ্চিত হয়ে স্বতন্ত্র (আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী) নির্বাচনের ঘোষণা দিয়েছেন। যদিও এবার ভোটারদের মাঝে তাকে নিয়ে তেমন আশাবাদী লক্ষ করা যায়না। বলতে গেলে জনবিচ্ছিন্ন অবস্থায় রয়েছেন। বর্তমান মেয়াদে চেয়ারম্যান থাকা অবস্থায় বিভিন্ন নারী কেলেঙ্কারি, ইমামকে হেনস্থা, সরকারি সেবা প্রদানে তার অনুসারীদের দিয়ে উৎকোচ গ্রহণ, আধিপত্য বিস্তার সহ নানা ইস্যুতে নাম জড়িয়েছে। এছাড়াও কিছুদিন আগে তার বিরুদ্ধে নারী কেলেঙ্কারির অভিযোগ ওঠায় তিনি তার প্রতিবাদ স্বরুপ নিজেকে নির্দোষ দাবী করে সংবাদ সম্মেলনে তার বক্তব্য পাঠ হাস্যরসের সৃষ্টি করে এবং তা ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়লে সর্ব মহল থেনে নেতিবাচক মন্তব্য আসতে থাকে।

শেরপুর জেলা পুলিশের আয়োজনে একটি প্রোগ্রামে মাওলানা জামাল উদ্দিনের উপিস্থিতির ছবিকে এডিট করে খালেদা জিয়ার ব্যানার সম্বলিত করে সম্প্রতি ফেসবুকে ছড়িয়ে দেওয়া হয় এবং জামাল উদ্দিনের ছবি ও নাম ব্যবহার করে ভূয়া ফেসবুক একাউন্টও তৈরী করা হয়। বিষয়টি নিয়ে জামাল উদ্দিন তার ফেসবুকে একটি পোস্ট করেন, যার অর্থ দাঁড়ায় বিভিন্ন সময় বর্তমান চেয়ারম্যান আজাদ মিয়া বিভিন্ন সময় উনাকে সহ পোড়াগাঁও ইউনিয়নের বিভিন্ন জনকে বিভিন্ন সময় মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করেছেন। আজ জামাল উদ্দিনের জনপ্রিয়তায় ঈর্ষান্বিত হয়ে আজাদ মিয়া এসব নোংরা রাজনীতি করছে বা করাচ্ছে। এছাড়াও জামাল উদ্দিন তার ফেসবুক আইডি সম্পর্কে সবাইকে সজাগ ও সচেতন থাকতে বলেছেন।





এই বিভাগের জনপ্রিয় খবর
Top