রামচন্দ্রকুড়া মন্ডলিয়াপাড়া ইউনিয়ন পরিষদ উপ-নির্বাচন

রামচন্দ্রকুড়া উপ-নির্বাচন: নৌকার বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে ইউনিয়ন যুবলীগ

শেরপুর ট্রিবিউন | প্রকাশিত: ২২ জুলাই ২০২২ ০০:০০; আপডেট: ২২ জুলাই ২০২২ ০০:১৩

ছবি: শেরপুর ট্রিবিউন

এবার ইউনিয়ন পরিষদ উপ-নির্বাচনে দলীয় প্রার্থীর বিরুদ্ধে প্রচার-প্রচারণা চালানোর অভিযোগ উঠেছে যুবলীগের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদকের বিরুদ্ধে। শেরপুরের নালিতাবাড়ী উপজেলার রামচন্দ্রকুড়া মন্ডলিয়াপাড়া ইউনিয়ন পরিষদ উপ-নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত দলীয় প্রার্থীর বিরুদ্ধে ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক সহ সংগঠনটির সিংহভাগ নেতাকর্মী প্রকাশ্যে মাঠে নেমেছেন।

গত ৩০ মার্চ ইউনিয়নটির চেয়ারম্যান আমানুল্যাহ বাদশা অসুস্থতা জনিত কারণে মারা যান। পরে ওই ইউপির চেয়ারম্যানের পদ শূন্য ঘোষণা করা হলে নির্বাচন কমিশন আগামী ২৭ জুলাই উপ-নির্বাচনে ভোট গ্রহণের দিন ধার্য করেন।

এদিকে উপ-নির্বাচনে আওয়ামী লীগের দলীয় প্রার্থী হিসেবে নৌকা প্রতীকের মনোনয়ন পান উপজেলা যুবলীগের সদস্য হাফিজুল ইসলাম জুয়েল। গত ৮ জুলাই প্রতীক বরাদ্ধের দিন উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক আলহাজ্ব মোঃ জাহাঙ্গীর আলম ও যুগ্ম আহবায়ক মোঃ ফয়সাল উদ্দিন সরকার স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী হাফিজুল ইসলাম জুয়েলের পক্ষে কাজ করতে রামচন্দ্রকুড়া মন্ডলিয়াপাড়া ইউনিয়ন যুবলীগ, ওয়ার্ড যুবলীগকে কাজ করতে নির্দেশনা প্রদান করা হয়।

উপজেলা যুবলীগের এই নির্দেশনা থাকার পরেও এখন পর্যন্ত ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক সহ কাউকেই নৌকা মার্কার প্রচারণায় দেখা যায়নি। উপরন্তু তারা আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী খোরশেদ আলম খোকার পক্ষে মোটর সাইকেল প্রতীকের সভা সমাবেশে বক্তব্য রাখছেন। এমনকি রামচন্দ্রকুড়া মন্ডলিয়াপাড়া ইউনিয়ন আওয়ামী যুবলীগের সভাপতি সাইফুল ইসলাম স্বতন্ত্র প্রার্থীর সমাবেশে বক্তব্যে দাবী করেন তার নেতৃত্বে ইউনিয়ন যুবলীগের ৬৫ জন নেতৃবৃন্দের মধ্যে ৬১ জনই নৌকার বিপক্ষে কাজ করছেন। উপজেলা যুবলীগের নির্দেশনাকে এভাবে তোয়াক্কা না করায় সংগঠনটির বিভিন্ন স্তরের নেতৃবৃন্দ হতাশা প্রকাশ করেছেন। অনেকে ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন- সুস্পষ্ট নির্দেশনা থাকার পরেও নৌকার বিপক্ষে কাজ করা সংগঠনের নীতি বহির্ভূত। তাদের যুবলীগ করার কোন অধিকার নেই।

উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক মোঃ ফয়সাল উদ্দিন সরকার ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, আমরা উপজেলা যুবলীগের পক্ষ থেকে নির্দেশনা দেওয়ার পরেও ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি সাধারণ সম্পাদকের দলীয় প্রার্থীর পক্ষে কাজ না করার বিষয়টি দুঃখজনক। তিনি আরো জানান, এখন পর্যন্ত উপজেলা যুবলীগের পক্ষ থেকে তাদের বিরুদ্ধে কোন সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি তবে কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ বিষয়টি সম্পর্কে অবগত আছেন। তারা যে সিদ্ধান্ত দিবেন আমরা তাই বাস্তবায়ন করবো।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে সভাপতি সাইফুল ইসলাম মিটিংয়ে আছেন জানিয়ে প্রতিবেদকের সাথে পরে কথা বলবেন বলে জানান। পরবর্তীতে একাধিকবার ফোন দিলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

উল্লেখ্য, আওয়ামী লীগের প্রার্থী হাফিজুল ইসলাম জুয়েল ছাড়াও স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে সাবেক চেয়ারম্যান খোরশেদ আলম খোকা মোটর সাইকেল, ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি ফজলুল হক দেলোয়ার ঘোড়া ও রফিকুল ইসলাম পাঠান আনারস প্রতিক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। আগামী ২৭ জুলাই ইলেট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) এর মাধ্যমে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। ওই ইউনিয়নে মোট ভোটার সংখ্যা ১৫ হাজার ১৭৩ জন। এরমধ্যে পুরুষ ভোটার ৭ হাজার ৫১৭ জন এবং নারী ভোটার ৭ হাজার ৬৫৬ জন।





এই বিভাগের জনপ্রিয় খবর
Top